1. mohib.bsl@gmail.com : admin : Md Mohibbullah
  2. editor@barisalerkhobor.com : editor :
বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ০৮:১২ পূর্বাহ্ন

টাকা নিয়ে দুই মাদকসেবীকে ছেড়ে দিলেন এসআই

  • Update Time : শনিবার, ৩০ মার্চ, ২০২৪
  • ১৯ Time View

মিরসরাইয়ে টাকা নিয়ে দুই মাদকসেবীকে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে জোরারগঞ্জ থানার এসআই সুফল বড়ুয়ার বিরুদ্ধে। শুক্রবার (২৯ মার্চ) দুপুর ১২টার দিকে ভুক্তভোগীদের পরিবারের কাছ থেকে টাকা আদায় করার ঘটনা ঘটেছে।

টাকা আদায় করে জোরারগঞ্জ ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ড গোপীনাথপুর এলাকার মো. আলাউদ্দিনের ছেলে ইমাম হোসেন (২৪) ও একই এলাকার তজল আহম্মদ এর ছেলে জাহিদুল ইসলামকে (২৮) কারাগারে না পাঠিয়ে দেড়ে দেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার জোরারগঞ্জ থানার দুর্গাপুর ইউনিয়নের গোপিনাথপুর এলাকার ইনসাফ যুব সংগঠনের ব্যানারে বৃহস্পতিবার রাতে দুই মাদকসেবীকে হাতে নাতে আটক করে। পরে স্থানীয় ইউপি সদস্য ইকবাল হোসেনের মাধ্যমে জোরারগঞ্জ থানা পুলিশের হাতে সোপর্দ করা হয়।

এসআই সুফল ও তার সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনাস্থল থেকে কিছু গাঁজা ও তরল মাদকসহ আটক করে থানায় নিয়ে আসে। থানায় নিয়ে মাদক মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে প্রেরণ করার কথা থাকলেও এসআই সুফল মাদকসেবীদের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করে ৬০ হাজার টাকা দাবি করেন। পরে দরকষাকষির এক পর্যায়ে ২০ হাজার টাকায় দফারফা হয়ে শুক্রবার দুপুরে দুই মাদকসেবীকে থানা থেকে ছেড়ে দেন।

গোপিনাথপুর ইনসাফ যুব সংগঠনের দায়িত্বশীলরা জানান, রমজান মাসে মসজিদের কাছাকাছি বসে স্থানীয় দুই যুবক গাঁজা ও তরল জাতীয় মাদক সেবন করছিলেন। এসময় মসজিদের মুসল্লি ও গোপিনাথপুর ইনসাফ যুব সংগঠনের সদস্যরা সম্মিলিতভাবে তাদের আটক করে ইউপি সদস্যের মাধ্যমে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। কিন্তু পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা না নিয়ে পরিবারের কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা নিয়ে ছেড়ে দিয়েছে। পুলিশের এমন কাণ্ডে স্থানীয়ভাবে মাদক কারবারি ও মাদক সেবন মাথাছড়া দিতে পারে বলে আশঙ্কা করছি আমরা।

ইউপি সদস্য ইকবাল হোসেন সাংবাদিকদের জানান, মাদকসেবীদের আটক করে আমি নিজেই পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছি । কিন্তু এখন শুনেছি এসআই সুফল টাকা নিয়ে ছেড়ে দিয়েছেন। এ ব্যাপারে তিনি জানান, মাদকসেবীদের কাছে যে পরিমাণ মাদক পাওয়া গেছে তা আদালতে প্রদর্শন করার মতো নয় তাই পরিবারের জিম্মায় তাদেরকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এসআই সুফল জানান, আটকদের কাছে কোনো মাদক পাওয়া যায়নি তাই তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। ২০ হাজার টাকা নেয়ার কথা তিনি অস্বীকার করেন।

মাদকসেবী ইমাম হোসেনের ভাই তারেক সাংবাদিকদের জানান, তার ভাই ইমাম ও জাহিদুল রাতে মাদক সেবন করার সময় স্থানীয়রা আটক করে পুলিশে দিয়েছে। তাদের ছাড়িয়ে আনতে প্রথমে ৬০ হাজার টাকা চায় এসআই সুফল। পরে শুক্রবার দুপুরে ২০ হাজার টাকায় তাদের ছেড়ে দেয়।

টাকা আমি নিজ হাতে দিয়েছি এসআই সুফলকে। জোরারগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল্লাহ আল হারুন সাংবাদিকদের জানান, তিনি বর্তমানে ছুটিতে আছেন। শনিবার ছুটি থেকে থানায় ফিরে বিষয়টি তদারকি করে উপযুক্ত ব্যবস্থা নিবেন।

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার (মিরসরাই সার্কেল) মনিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, সিগারেট খাওয়ার জন্যতো আর কেউ পুলিশে ধরিয়ে দেয় না। সিগারেট খাওয়ার অপরাধে থানায় আটক করে রাখারও কথা নয়। টাকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়ার বিষয়টি তদারকি করে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved ©
Theme Customized By BreakingNews
Optimized by Optimole