1. admin@barisalerkhobor.com : admin : Md Mohibbullah
  2. editor@barisalerkhobor.com : editor :
রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০২:২১ পূর্বাহ্ন

যুক্তরাষ্ট্রের পর এবার ইসরাইলকে সতর্ক করল চীন

  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ৪৬ Time View

অবরুদ্ধ ও যুদ্ধবিধ্বস্ত গাজার দক্ষিণাঞ্চল রাফায় ইসরাইলি হামলায় শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছেন। ১০ লাখেরও বেশি বাস্তুচ্যুত মানুষের এই আশ্রয়স্থলে ইসরাইলি অভিযানকে প্রত্যাখ্যান করেছে চীন। দেশটি বলেছে, ইসরাইলি অভিযান এই অঞ্চলে গুরুতর মানবিক বিপর্যয় সৃষ্টি করবে। এই অবস্থায় অতি দ্রুত রাফায় ইসরাইলি সামরিক অভিযান বন্ধ করতে আহ্বান জানিয়েছে চীন।

মঙ্গলবার রাফায় মানবিক বিপর্যয়ের বিষয়ে সতর্ক করে চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র এক বিবৃতিতে এই আহ্বান জানিয়েছেন। খবর এএফপির।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, রাফায় যুদ্ধ বন্ধ না হলে গুরুতর মানবিক বিপর্যয় দেখা দেবে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, ‘আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন ও বেসামরিক নাগরিকদের জন্য ক্ষতিকারক এমন যে কোনো হামলার তীব্র নিন্দা ও বিরোধিতা করে চীন।’

বিবৃতিতে রাফায় অতি দ্রুত সামরিক অভিযান বন্ধ করতে ইসরায়েলের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলা হয়, ‘অতি দ্রুত সামরিক অভিযান বন্ধ করে এমন পদক্ষেপ নেওয়া উচিত যাতে বেসামরিক ক্ষয়ক্ষতি কমানো যায় এবং রাফায় আরও বড় পরিসরে সৃষ্টি হতে যাওয়া মানবিক বিপর্যয় এড়ানো যায়।’

এর আগে, সোমবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন রাফায় অভিযান পরিচালনার বিষয়ে ইসরাইলকে সতর্ক করে বলেন, রাফায় যারা আশ্রয় নিয়েছে তারা নাজুক অবস্থায় আছে। সেখানে কোনোভাবেই অভিযান চালানো উচিত হবে না।

বাইডেন বলেন, ‘রাফায় আশ্রয় নেওয়া এবং সেখানে বসবাসরত ১০ লাখেরও বেশি মানুষের নিরাপত্তা, সুরক্ষা ও তাদের জন্য সহায়তা নিশ্চিত না করে বড় ধরনের সামরিক অভিযান চালানোর বিষয়টি এগিয়ে নেওয়া উচিত হবে না।’

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আরও বলেন, ‘সহিংসতার কারণে গাজার উত্তরাঞ্চলের লাখো মানুষ একাধিকবার বাস্তুচ্যুত হয়েছে এবং এখন তারা রাফায় আশ্রয় নিয়েছে। তারা বর্তমানে নাজুক পরিস্থিতিতে আছে। তাদের রক্ষা করা দরকার।’

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved ©
Theme Customized By BreakingNews
Optimized by Optimole