1. admin@barisalerkhobor.com : admin : Md Mohibbullah
  2. editor@barisalerkhobor.com : editor :
বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৩৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
দিনাজপুর বিরল ফরক্কাবাদ ইউনিয়নে চশমা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম প্রচারণায় ব্যস্ত কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ, অভিযুক্ত গ্রেফতার বরিশালে কারেন্ট জাল ও মাছ সহ আটক ২০ বরিশালে দুর্গাসাগরে পুণ্যস্নানে নেমে কলেজছাত্রের মৃত্যু বরিশালে ইউপি চেয়ারম্যানকে অবরুদ্ধ করে বিক্ষোভ *ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া বানাড়ীপারায় সংযোগ সড়ক ছাড়াই ব্রিজ উদ্বোধন, দুর্ভোগে এলাকাবাসী টিকটকে কিশোর-কিশোরীর পরিচয়: অত:পর বাল্যবিবাহ বাকেরগঞ্জ বড়িয়া বিপিএল কমিটির উদ্যোগে ঈদ পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠিত উজিরপুরে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ব্রাক ম্যানেজারের বাসায় দুর্ধর্ষ ডাকাতি ঐতিহাসিক কান্তজিউ মন্দিরে পরিদর্শনে আসেন – উপ-সচিব দেবী চন্দ ও অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার উত্তম কুমার পাল

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নবী হোসেন!: বাড়তি সতর্ক ব্যবস্থা নিতে হবে

  • Update Time : রবিবার, ১১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ১৪ Time View

রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নবী হোসেন দলবলসহ কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে প্রবেশ করেছেন বলে যে তথ্য পাওয়া গেছে, তা ভালোভাবে খতিয়ে দেখা দরকার। জানা গেছে, তার প্রবেশের তথ্যে ক্যাম্প ও ক্যাম্পের বাইরের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন বহু মানুষ। উল্লেখ্য, নবী হোসেন ২০১৭ সালে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে এসে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদেরই একজন। পরে তিনি বিপুল পরিমাণ অস্ত্র এনে ক্যাম্পের ভেতর অপরাধ চক্র গড়ে তোলেন। জানা যায়, বালুখালী এলাকার চারটি ক্যাম্প নবী হোসেন বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে। এ বাহিনী মাদক পাচার, চাঁদাবাজিসহ নানা অপরাধে জড়িত। বাংলাদেশে নবীর বিরুদ্ধে পাঁচটি হত্যা মামলাসহ ১২টি মামলা রয়েছে। নবী হোসেনকে জীবিত বা মৃত ধরিয়ে দিতে ১০ লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করে ২০২২ সালের মার্চে পোস্টার সেঁটেছিল বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। এরপর নবী সীমান্ত অতিক্রম করে পালিয়ে যান এবং জঙ্গলের ভেতর থেকেই রোহিঙ্গা ক্যাম্পের অপরাধ চক্র নিয়ন্ত্রণ করছেন বলে খবর মেলে। কাজেই এখন তার ক্যাম্পে প্রত্যাবর্তনের তথ্যটি সত্য হয়ে থাকলে তা উদ্বেগজনক বৈকি!

রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে বেশ কয়েকটি সন্ত্রাসী গ্রুপ সক্রিয় রয়েছে। আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে প্রায়ই সহিংস ঘটনা ঘটছে। অতি তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করেও গোলাগুলি-খুনোখুনির মতো ঘটনা ঘটছে। এমন তথ্যও রয়েছে যে, ক্যাম্প অশান্ত করার জন্য সন্ত্রাসী গ্রুপগুলোকে ইতঃপূর্বে বিনামূল্যে কোটি কোটি টাকার ইয়াবা দিয়েছে মিয়ানমার, যাতে রোহিঙ্গাদের সন্ত্রাসী হিসাবে চিহ্নিত করে আন্তর্জাতিক আদালতে রোহিঙ্গা গণহত্যার বিচার প্রক্রিয়া ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার মাধ্যমে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন রোধ করা যায়। এছাড়া কক্সবাজার ও বান্দরবানের সীমান্তবর্তী নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুমের তুমব্রু সীমান্তের শূন্যরেখা ও তোতার দ্বীয়া দ্বীপে জঙ্গি ঘাঁটি গড়ে ওঠার তথ্যও রয়েছে। বলা বাহুল্য, এ পরিস্থিতি দেশের জন্য মারাত্মক নিরাপত্তা ঝুঁকি তৈরি করেছে। কাজেই রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের অত্যন্ত শক্ত হাতে দমন করা প্রয়োজন। বর্তমানে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে সেনাবাহিনী ও বিদ্রোহীদের মধ্যে সংঘাতের পরিপ্রেক্ষিতে সৃষ্ট পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে সন্ত্রাসী নবী হোসেন কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে প্রবেশ করে থাকলে তাকে যেভাবেই হোক গ্রেফতার করতে হবে। পুলিশ জানিয়েছে, নবী হোসেন ও তার দলের লোকজনের সীমান্ত অতিক্রমের খবর তারা শুনেছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বাড়তি সতর্ক ব্যবস্থা নেওয়া হবে, এটাই কাম্য।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved ©
Theme Customized By BreakingNews
Optimized by Optimole